Tuesday, May 24, 2022

২ বছরের শিশু সহ একই পরিবারের পাঁচজন খুন! প্রয়াগরাজে নৃশংস হত্যাকাণ্ড

- Advertisement -spot_img
- Advertisement -spot_img

#প্রয়াগরাজ: উত্তর প্রদেশের প্রয়াগরাজে নৃশংস হত্যাকাণ্ড৷ দু’ বছরের শিশু সহ একই পরিবারের পাঁচ জন সদস্যের দেহ উদ্ধার করা হয়েছে৷ নিহতদের প্রত্যেকেরই মাথায় আঘাতের চিহ্ন রয়েছে৷ ঘটনার জেরে ফের একবার উত্তর প্রদেশের আইনশৃঙ্খলা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে৷

যে পাঁচ জনের দেহ উদ্ধার হয়েছে তাঁদের মধ্যে রয়েছেন রাম কুমার যাদব (৫৫), তাঁর স্ত্রী কুসুম দেবী (৫২), মেয়ে মনীষা (২৫), পুত্রবধূ সবিতা (২৭) এবং নাতনি মীনাক্ষী (২)৷ রাম কুমারের ছেলে সুনীল ঘটনার সময় বাড়ি না থাকায় প্রাণে বেঁচে গিয়েছেন৷ রাম কুমারের আর এক নাতনি পাঁচ বছরের সাক্ষীকেও জীবিত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে৷ এই দু’ জনের সঙ্গে কথা বলেই আততায়ীদের চিহ্নিত করার চেষ্টা করছে পুলিশ৷

আরও পড়ুন: অনুমতি ছাড়া আর কোনও ধর্মীয় শোভাযাত্রা বের করা যাবে না উত্তরপ্রদেশে: যোগী আদিত্যনাথ

প্রয়াগরাজ জেলার খোয়াজাপুর এলাকায় নিজেদের বাড়ি থেকেই এই পাঁচ জনের দেহ উদ্ধার হয়৷ ঘটনার কথা জানাজানি হতেই ঘটনাস্থলে পৌঁছন পুলিশ সুপার এবং জেলাশাসক৷ এক পুলিশকর্তা জানিয়েছেন, প্রত্যেকটি দেহেই আঘাতের চিহ্ন রয়েছে৷ দেহগুলি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয়েছে৷ সাতটি দল গঠন করে ঘটনার হত্যাকাণ্ডের কিনারা করার চেষ্টা করছে পুলিশ৷ আততায়ীদের খুঁজে বের করতে পুলিশ কুকুর এবং ফরেন্সিক বিশেষজ্ঞদেরও ঘটনাস্থলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে৷

জেলাশাসক সঞ্জয় কুমার খাতরি জানিয়েছেন, রাম কুমারের বাড়িতে আগুন লেগেছে দেখে প্রথমে স্থানীয়রাই পুলিশে খবর দেন৷ ঘটনাস্থলে পৌঁছনোর পুলিশ এবং দমকল বাহিনীর সদস্যরাই বাড়ির ভিতরে দেহগুলি উদ্ধার করেন৷ জেলাশাসক জানিয়েছেন, যে ঘরে আগুন লেগেছিল, তার সামনে থেকে দু’ বছর বয়সি ছোট্ট মেয়েটি এবং তার মায়ের দেহ উদ্ধার করা হয়৷ রাম কুমার এবং তাঁর স্ত্রীর দেহ পড়েছিল একটি খাটের উপরে৷ তাঁদের দেহে তখনও প্রাণ ছিল৷ সবশেষে ওই দম্পতির মেয়ের দেহ উদ্ধার করা হয়৷

আরও পড়ুন: নারকীয় হত্যাকাণ্ড! ঝুলছে স্বামীর দেহ, বিছানায় গলার নলি কাটা অবস্থায় স্ত্রী ও তিন শিশু কন্যা

যদিও জেলাশাসকের দাবি, ওই পরিবারের সঙ্গে কারও শত্রুতার খবর এখনও পাওয়া যায়নি৷ দোষীদের ধরে দ্রুত শাস্তির দাবিতে পুলিশকে ঘিরে বিক্ষোভও দেখান স্থানীয়রা৷

গত ১৬ এপ্রিল এই প্রয়াগরাজ জেলারই খাগলপুর গ্রামে ৩৮ বছর বয়সি এক মহিলা এবং তাঁর তিন মেয়ের গলাকাটা দেহ উদ্ধার হয়৷ ওই মহিলার স্বামীর দেহ ঝুলন্ত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়৷ ওই ঘটনার ক্ষেত্রে অবশ্য একটি সুইসাইড নোট উদ্ধার করা হয়েছিল৷ যেখানে মহিলার আত্মঘাতী স্বামী দাবি করেছিলেন তাঁর শ্বশুরবাড়ির তরফে মানসিক নির্যাতন সহ্য করতে না পেরেই তিনি চরম পদক্ষেপ নিতে বাধ্য হলেন৷

Published by:Debamoy Ghosh

First published:

Tags: Murder, Uttar Pradesh

Source link

- Advertisement -spot_img

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Latest news
- Advertisement -spot_img
Related news
- Advertisement -spot_img