Thursday, September 29, 2022

নীতি পুলিসের হাতে নিহত ১, হাসপাতালে মৃত্যু ২২ বছরের মাহসার

- Advertisement -spot_img
- Advertisement -spot_img


জি ২৪ ঘণ্টা ডিজিটাল ব্যুরো: ইরানের নীতি পুলিস সেই দেশের এক মহিলাকে মারধোর করে। ঘটনার পরে ওই মহিলা কোমায় চলে যান এবং তাঁকে ব্রেন ডেড ঘোষণা করা হয়। জানা গিয়েছে হাসপাতালে ভর্তি থাকা ওই মহিলার মৃত্যু হয়েছে। ২২ বছরের মাহসা আমিনি মঙ্গলবার হিজাব পরা সংক্রান্ত কঠোর এবং নিপীড়নমূলক নিয়ম মানে নি। এরপরেই তাঁকে তেহরানে গ্রেফতার করা হয়। তিনি কুর্দিস্তান থেকে দেশের রাজধানীতে আত্মীয়দের সঙ্গে দেখা করার জন্য এসেছিলেন বলে জানা গিয়েছে। এখানেই তাকে রাস্তা থেকে অপহরণ করা হয় এবং একটি থানায় নিয়ে গিয়ে মারধর করা হয়। যেখানে আরও কয়েকজন মহিলাকেও আটক করা হয়েছিল বলে জানা গিয়েছে।

তার ভাই কিয়ারাশ আমিনি ইরানওয়্যারকে বলেন যে তিনি মাহসার সঙ্গে ছিলেন যখন তাকে নিয়ে যাওয়া হয়। তিনি আরও বলেন পুলিস একটি টহল ভ্যান দিয়ে তাদের পথ আটকায় যাতে তারা মাহসাকে জোর করে গাড়িতে তুলতে পারে।

তিনি আরও বলেন যে তিনি পুলিসের কারাগারের কাছে অ্যাম্বুলেন্স দেখে তাঁর কাছে যাওয়ার সময় চিৎকার শুনতে পান এবং মহিলাদের ছেড়ে দেওয়ার পরে তাদেরকে পালিয়ে যেতে দেখেন।

কিয়ারাশ বলেছেন, ‘তাদের প্রত্যেকেই বলেছিল যে ভিতরে কোনও একজনকে হত্যা করা হয়েছে। আমি ওই মহিলাদের কাছে মাহসার ছবি দেখালাম। তাদের মধ্যে একজন বলেন যে যখন এই ঘটনা ঘটেছিল তখন মাহসা তার পাশে ছিল’।

তিনি আরও বলেন, ‘আমি হতবাক এবং আতঙ্কিত হয়ে পরেছিলাম। আমি একজন সৈন্যকে জিজ্ঞেস করলাম কি হয়েছে। তিনি বলেন, ‘আমাদের এক সৈন্য আহত হয়েছে। সে মিথ্যা বলছে। আমি তাকে বিশ্বাস করিনি। ওই অ্যাম্বুলেন্সে মাহসা ছিল। আমি কাসরা হাসপাতালে পৌঁছনো পর্যন্ত দৌড়েছিলাম’।

তেহরানের পুলিশ তাকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে সেই কথা অস্বীকার করেছে এবং দাবি করেছে যে ‘যৌক্তিকতা এবং শিক্ষা’ এর একটি অধিবেশন চলাকালীন, তরুণী ‘হঠাৎ হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে’।

মাহসার শোকার্ত ভাই তার বোনের মৃত্যু যাতে বিফলে না যায় সেই প্রতিজ্ঞা করেছেন এবং একটি আদালতে অভিযোগ দায়ের করেছেন।

তিনি বলেন, ‘আমি এটি অনুসরণ করব। কিন্তু আপনি জানেন কিভাবে সিস্টেম কাজ করে। তারা আমাকে একটি চিঠি দিয়েছে এবং আমাকে ভোজারা এভিনিউতে হেডকোয়ার্টারে গিয়ে আমার অভিযোগ নথিভুক্ত করতে বলেছে।

আরও পড়ুন: Russia: পুতিনের কনভয়ে বিস্ফোরণ, প্রাণ বাঁচিয়ে পালালেন রুশ প্রেসিডেন্ট

তিনি আরও বলেন, ‘যদি আমি কাউকে হত্যা করি তাহলে আমার বাবাকে হত্যাকারীর নাম জিজ্ঞাসা করার মতো কাজ এটা। কিন্তু আমি এটাকে নীরবে শেষ হতে দেব না। আমি ইরানের সবাইকে জানাবো কি হয়েছে’।

ইরানে নারীদের অবশ্যই জনসমক্ষে হিজাব পরতে হয় এবং এই বিষয়টি সম্প্রতি ব্যাপক বিতর্ক ও দেশব্যাপী প্রতিবাদের জন্ম দিয়েছে।

ইরান জুড়ে সাহসী বিক্ষোভকারীরা ১২ জুলাই দেশে হিজাব এবং সতীত্ব দিবসের আইনের বিরুদ্ধে সোশ্যাল মিডিয়া এবং রাস্তায় নেমেছিল।

#No2Hijab এবং #WalkingUnveiled আন্দোলনের প্রতিক্রিয়ায়, পুলিস বেশ কয়েকজনকে গ্রেফতার করেছে। সহযাত্রীরা হস্তক্ষেপ করার আগেই একটি বাসে হিজাব না পরা একজন মহিলাকে হয়রানির শিকার হওয়ার একটি ভিডিও প্রকাশ পেয়েছে।

(Zee 24 Ghanta App দেশ, দুনিয়া, রাজ্য, কলকাতা, বিনোদন, খেলা, লাইফস্টাইল স্বাস্থ্য, প্রযুক্তির লেটেস্ট খবর পড়তে ডাউনলোড করুন Zee 24 Ghanta App) 





Source link

- Advertisement -spot_img

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Latest news
- Advertisement -spot_img
Related news
- Advertisement -spot_img