Monday, January 30, 2023

বৃদ্ধির পূর্বাভাস ‘কমছে’, শেয়ারবাজার কিন্তু তেজি

- Advertisement -spot_img
- Advertisement -spot_img


Stock Market News ফের ভারতের বৃদ্ধির পূর্বাভাস কমাল স্ট্যান্ডার্ড অ্যান্ড পুওর (এসঅ্যান্ডপি) গ্লোবাল রেটিংস। চলতি অর্থবর্ষে ভারতের জাতীয় বৃদ্ধির হার ৭ শতাংশ হবে বলে সোমবার জানিয়েছে রেটিং সংস্থাটি। এর আগে এসঅ্যান্ডপি গ্লোবাল রেটিংস চলতি অর্থবর্ষে ভারতের বৃদ্ধির হার নিয়ে তাদের মত বদলে ৮.৭ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৭.৩ শতাংশ করেছিল। ২০২৩-২৪ অর্থবর্ষে তা ৬.৫ শতাংশে দাঁড়াবে বলে জানিয়েছিল সংস্থাটি। যদিও, বিশ্ববাজারের মন্দার পরিস্থিতি ভারতের ঘরোয়া চাহিদা নির্ভর অর্থনীতির উপর সামান্য প্রভাব ফেলবে বলে আশার কথা শুনিয়েছে তারা।

Penny Stock: 62 হাজার ছাপিয়ে গেল সেনসেক্স! সোমবারের বাজার কাঁপাল পেনি স্টক
এসঅ্যান্ডপি গ্লোবাল রেটিংস-এর চিফ ইকোনমিস্ট (এশিয়া প্যাসিফিক) লুই কুইস বলেন, “ভারতের মতো ঘরোয়া চাহিদা নির্ভর অর্থনীতির উপর আন্তর্জাতিক মন্দার পরিস্থিতির সামান্য প্রভাব পড়বে। চলতি অর্থবর্ষে এ দেশের জাতীয় বৃদ্ধির হার ৭ শতাংশ এবং আগামী অর্থবর্ষে তা ৬ শতাংশ হবে।”

আগামী বছরে ভারতের জাতীয় বৃদ্ধি নিয়ে তাদের পূর্বানুমান কমিয়েছে গোল্ডম্যান স্যাক্সও। দুর্বল ক্রেতা চাহিদা এবং করোনা পরবর্তী সময়ে কেন্দ্র আমজনতার সুবিধার জন্য যে সমস্ত প্রকল্প শুরু করেছিল তা গুটিয়ে ফেলার কারণে বৃদ্ধির হার কমবে বলেই জানিয়েছে উপদেষ্টা সংস্থাটি। আগামী বছর দেশের জাতীয় বৃদ্ধির হার ৫.৯ শতাংশ হবে বলেই মনে করে গোল্ডম্যান স্যাক্স।

প্রসঙ্গত, এর আগে বিশ্বব্যাঙ্ক, এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাঙ্ক, মুডি’জ এবং আন্তর্জাতিক অর্থভাণ্ডার ভারতের জাতীয় বৃদ্ধির হার নিয়ে তাদের পূর্বানুমান কমিয়েছে। চলতি বছরের জন্য বৃদ্ধির পূর্বানুমান ৭.৭ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৭ শতাংশ করেছে মুডি’জ। বিশ্বব্যাঙ্ক বৃদ্ধির হার ১ শতাংশ কমিয়ে ৬.৫ শতাংশ করেছে। আন্তর্জাতিক অর্থভাণ্ডারও তাদের আগের ৭.৪ শতাংশ অনুমিত বৃদ্ধির হার কমিয়ে ৬.৮ শতাংশ করেছে। তালিকায় রয়েছে এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাঙ্কও। ভারতের অর্থনৈতিক বৃদ্ধির হার চলতি অর্থবর্ষে ৭ শতাংশ হবে বলেই তাদের অনুমান।

Top trending stock: মাত্র কয়েক ঘন্টায় 5% বৃদ্ধি! বিনিয়োগকারীদের পকেট ভরাচ্ছে এই স্টক
এরই মধ্যে কিন্তু আশার আলো দেখাচ্ছেন মর্গ্যান স্ট্যানলির বিশেষজ্ঞরা। তাঁদের দাবি, পরিস্থিতি হঠাৎ বড় ধরনের বদলে না গেলে, ভারতের শেয়ারবাজার চাঙাই থাকবে। শতকরা ৩০% সম্ভাবনা রয়েছে, আগামী বছরের শেষে তা ৮০,০০০ মাইলস্টোনে পৌঁছে যাবে। সংস্থার ইক্যুইটি স্ট্র্যাটেজিস্ট রিধম দেশাই সাম্প্রতিক রিপোর্টে জানিয়েছেন, এই পূর্বানুমানের পিছনে কয়েকটি সম্ভাবনার কথা ধরছেন তাঁরা। যার মধ্যে রয়েছে, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র মন্দার কবলে না পড়া, রুশ-ইউক্রেন যুদ্ধের প্রভাব আর বেশিদিন না চলা এবং ভারত সরকার ও রিজ়ার্ভ ব্যাঙ্কের তরফে উন্নয়নের সহায়ক নীতির পথে অটল থাকা।

এ সবের মধ্যেই মুম্বই শেয়ারবাজার কিন্তু তার ঊর্ধ্বগতি বজায় রেখেছে। প্রধান সূচক সেনসেক্স ২১১ পয়েন্ট বেড়ে বন্ধ হয়েছে রেকর্ড ৬২,৫০৪ পয়েন্টে। নিফটিও ১৮৫৫০ স্তর পার করে পৌঁছে গিয়েছে ১৮,৬১৪’র নতুন শিখরে। জিয়োজিৎ ফিনান্সিয়াল সার্ভিসেস এর হেড (রিসার্চ) বিনোদ নায়ারের দাবি, “চিনে বাড়তে থাকা কোভিড লকডাউন এবং জনমানসে তার প্রতিবাদের ঢল লগ্নিকারীদের ভারত এবং এশিয়ার অন্য দেশগুলির দিকে আগ্রহী করে তুলেছে। বুধবার মার্কিন ফেডারেল রিজ়ার্ভ প্রধান জেরোম পাওয়েল-এর ভাষণের উপর ভারত-সহ বিশ্ববাজারের গতি অনেকাংশে নির্ভর করছে।”

RVNL Share Price: ভারতীয় রেলের শেয়ার এক মাসে বাড়ল দ্বিগুণ, 100 শতাংশ লাভ পেলেন বিনিয়োগকারীরা
বিশেষজ্ঞদের আরও দাবি, ডিসেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহে মার্কিন ফেড-এর ঋণনীতি কমিটির বৈঠক রয়েছে। তার ঠিক আগেই জানা যাবে সেদেশে কর্মসংস্থানের সাম্প্রতিক পরিসংখ্যান। এদু’টি তথ্য সদর্থক হলে তা মার্কিন মুলুকের সঙ্গেই গোটা বিশ্বের শেয়ারবাজারকে নতুন অক্সিজেন জোগাবে।

ভারতের শেয়ারবাজারের অগ্রগতির পিছনে বিদেশি প্রাতিষ্ঠানিক লগ্নিকারীদেরও বড় ভূমিকা থাকে। জুলাই থেকে নভেম্বরের মধ্যে ভারতের শেয়ারবাজারে তাঁরা ঢেলেছেন প্রায় ৮৭,০০০ কোটি টাকা। যার জেরে সেনসেক্স ও নিফটি, দুই সূচকই বেড়েছে প্রায় ১৮%। পরিসংখ্যান বলছে, ক্যালেন্ডার বর্ষের প্রথম ছ’মাসে যেখানে ভারত থেকে দফায় দফায় ২.১৭ লক্ষ কোটি টাকার লগ্নি তুলে নিয়ে চলে গিয়েছিলেন তাঁরা, সেখানে জুলাই থেকে নভেম্বরের মধ্যে দেশে ফিরেছে ৮৭,৮২৩ কোটি টাকার বিদেশি লগ্নি। যা ভারতের বাজারকে ফের চাঙা করে তুলেছ। এই অবস্থা থেকে চিনের করোনা পরিস্থিতি এবং মার্কিন ফেডের সুদের হার বাড়ানো নিয়ে মনোভাবের উপরেই দাঁড়িয়ে দালাল স্ট্রিটের ভাগ্য।



Source link

- Advertisement -spot_img

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Latest news
- Advertisement -spot_img
Related news
- Advertisement -spot_img